• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সামাজিক কাজে অবদান রাখায় সংবর্র্ধিত হলেন কাজিপুরের সোনামুখী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজিপুরে আনোয়ারা আজাদ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ কাজিপুরে আনোয়ারা আজাদ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ বগুড়ায় মাটিডালী যুব ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী বিতরণ শিবগঞ্জে প্রবীণ কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সারিয়াকান্দি কুতুবপুর ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের মাঝে চাল বিতরণ ধামরাইয়ের কালিয়াগারে জানালা ভাঙা নিয়ে তুমুল ঝগড়া ও সংঘর্ষ উপস্থাপনায় সেরা হওয়ার লড়াইয়ে বগুড়ার তামান্না খন্দকার ঈদ উপহার পেলেন কাজিপুরের ১৪শ দুস্থ পরিবার মোহাম্মদ নাসিমের জন্মদিনে কোরান শরিফ বিতরণ করলেন এমপি জয়

শাহজাদপুরে যুবলীগ নেতা ও বালু ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে দ্বিতীয় বিয়ে করে স্ত্রীকে ভরণ পোষণ না করে নির্যাতনের অভিযোগ

রিপোর্টারঃ / ২২৩ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশিত হয়েছেঃ সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০২২

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি :
সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার গালা ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা অবৈধ বালু ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নানের বিরুদ্ধে গোপনে ২য় বিয়ে করে স্ত্রীকে ভরণ পোষণ না করে মেনে না নেয়া ও নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরে জমিনে গিয়ে ভুক্তভোগী আব্দুল মান্নানের ২য় স্ত্রী লতা বেগম ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার গালা ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের আবু বক্কারের পুত্র ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা ও বালু ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান গত এক বছর পূর্বে পার্শ্ববর্তী হাটবায়ড়া গ্রামের মৃত আবু সামার কন্যা দুই সন্তানের জননী লতা খাতুনকে নানা প্রলোভন দেখিয়ে ফুসলিয়ে গোপনে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকেই বিষয়টি গোপন রেখে সময় সাপেক্ষে লতাকে নিয়ে সংসার করার প্রতিশ্রুতি দিলেও শেষ পর্যন্ত তা রক্ষা করেনি যুবলীগ নেতা মান্নান। এমনকি ২য় স্ত্রী লতা খাতুনকে তার বাবার বাড়ীতে রাখলেও কোন প্রকার ভরণ পোষন প্রদানতো দূরের কথা ঠিকমত যোগাযোগও রক্ষা করেনি। এমতবস্থায় অন্যের বাড়ীতে কাজ করে মান্নানের ২য় স্ত্রী দুই সন্তান ও অসহায় মাকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। সম্প্রতি আব্দুল মান্নানের পরিবার থেকে ২য় স্ত্রী লতাকে নানা রকম ভয়ভীতি প্রদর্শণ এমনকি বাড়ীঘর জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকী দিচ্ছে। এদিকে ২য় স্ত্রী লতার সাথে আব্দুল মান্নান যোগাযোগ বন্ধ করায় স্ত্রীর স্বীকৃতি ও সুষ্ঠ বিচার প্রার্থনা করছেন এলাকার মানুষ ও প্রশাসনের কাছে। এ ব্যাপারে আব্দুল মান্নানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ১ বছর আগে বিয়ে করেছিলাম আর গত ৩ মাস পূর্বেই ২য় স্ত্রী লতাকে ডিভোর্স দিয়েছি। তাই লতা আমার স্ত্রী নেই। কাগজ দেখতে চাইলে তা দেখাতে অপরাগতা প্রকাশ করেন আব্দুল মান্নান। অপরদিকে নির্যাতন ভয়ভীতি প্রদর্শণের কথা তুলে ধরে লতা খাতুন জানান, কাশিপুর গ্রামের যুবলীগ নেতা আব্দুল মান্নান একজন প্রভাবশালী ব্যক্তি। তার বিরুদ্ধে এলাকায় কেউ মূখ খুলতে সাহস পায়না। দলীয় প্রভাব খাটিয়ে মান্নান দীর্ঘদিন ধরে যমুনা নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলণ কওে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। তাই নির্যাতিত ভূক্তভোগী স্ত্রী লতা বেগম প্রতারক স্বামী আব্দুল মান্নানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন। লতা বেগম আরো জানান, তিনি স্বামী আব্দুল মান্নানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রস্থতি নিচ্ছে।

এ/হ


এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন