• বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ফুলবাড়ীতে মা আমেনা বালিকা কওমি মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের কুরআনের সবক প্রদান দুপচাঁচিয়ায় নাশকতা মামলার বিএনপির কর্মী সহ বিভিন্ন মামলায় ৯ জন আটক গাইবান্ধা-৪ আসনে লাখো মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ সিরাজগঞ্জের মহাসড়কে মধ্যরাতে পিকআপে আগুন বগুড়ায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন বগুড়ায় ট্যাপেন্টাডলসহ গ্রেফতার ১ বগুড়ায় ঝোপগাড়ী উদয়ন সংঘের উদ্যোগে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ও ডায়াবেটিস পরীক্ষা সারিয়াকান্দি মডেল প্রেস ক্লাবের সভাপতি জাহাঙ্গীর সম্পাদক সাহাদত সিরাজগঞ্জ-১ আসনে নৌকার প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা কাজিপুরে চার হাজার কৃষক পেলেন প্রণোদনার ধানবীজ ও সার

পারভীন হত্যা রহস্য উদঘাটন ও মূলহোতাসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪

রিপোর্টারঃ / ১৭৪ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশিত হয়েছেঃ শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২২

মোঃ ইব্রাহিম খলিল, সাভার উপজেলা প্রতিনিধি :
গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর একটি চৌকস দল ২২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ঢাকাা জেলাার আশুলিয়া থানাধীন পাতালিয়া ইউনিয়নের খেজুরটেক এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে পারভীন আক্তার হত্যা কান্ডের রহস্য উদঘাটনপূর্বক হত্যা কান্ডের মূল হোতাসহ ৪ জনকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করে। এ সময় র‍্যাব জানান গত ২০ ডিসেম্বর সাভারের আশুলিয়ার একটি পরিত্যক্ত নির্মানাধীন বাড়ির ভেতরের জঙ্গলে অজ্ঞাতনামা এক নারীর লাশ খুঁজে পাওয়া যায় এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট থানাকে অবহিত করা হয়। পরবর্তীতে তথ্যপ্রযুক্তির ভিত্তিতে জানা যায় যে, মৃত ভিকটিমের নাম মোছাঃ পারভিন আক্তার লক্ষ্মীপুর সদর থানাধীন এলাকার বাসিন্দা।
বিগত সাত আট বছর ধরে আশুলিয়া থানাধীন খেজুরটেক এলাকায় একটি বাড়ির ভাড়াটিয়া হিসেবে থাকতেন। পরে ভিকটিমের ছেলে মোঃ ইসমাইল হোসেন অজ্ঞাতনামা আসামী করে আশুলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে র‌্যাব-৪ এর একটি গোয়েন্দা দল ভিকটিমের দেহ সনাক্তসহ হত্যার রহস্য উদঘাটন ও অপরাধীদেরকে আইনের আওতায় আনতে তৎক্ষণাৎ ছায়াতদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৪ এর একটি চৌকস আভিযানিক দল গত ২২ ডিসেম্বর গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ভিকটিম সনাক্তসহ উক্ত হত্যা কান্ডের মূল হোতা ফরিদপুর জেলার মনিরুজ্জামান সহ সিরাজগঞ্জ জেলার সোলায়মান হোসেন বাবু,আল আমিন ও সাব্বির কে গ্রেফতার করে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, মৃত ভিকটিম পারভিন আক্তারসহ গ্রেফতারকৃত আসামীরা পূর্ব পরিচিত এবং তারা স্থানীয়ভাবে ভাঙ্গারির ব্যবসাযর কাজে ভিকটিম পারভিন আক্তারের কাছে টাকা লগ্নী করা ছিলো। জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায় যে, আসামি মনিরুজ্জামান ভিকটিম এর কাছে ১১ হাজার টাকা এবং আসামি আল আমিন ৬০ হাজার টাকা পেত। কিন্তু ব্যবসায় ক্ষতি হওয়াতে তাদের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটে যার প্রেক্ষিতে মনিরুজ্জামান, আল-আমিনসহ তাদের সহযোগীরা ভিকটিম পারভীন আক্তারকে চাপ প্রয়োগ ও এক পর্যায়ে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। তখন আসামি মোঃ মনিরুজ্জামান এর নেতৃত্বে অন্যান্যরা ভিকটিম পারভীনের বড় কোনো ক্ষতি করার পরিকল্পনা মোতাবেক গত ১৭/১২/২০২২ তারিখ রাত ২০.০০ ঘটিকার সময় কৌশলে আশুলিয়ার ফুলেরটেক এলাকায় একটি পরিত্যক্ত নির্মানাধীন বাড়ির ভেতরের জঙ্গলে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে গ্রেফতারকৃত আসামীরা ভিকটিমকে পালাক্রমে ধর্ষণের ফলে জ্ঞান হারিয়ে ফেললে আসামিরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে এবং ঘটনা আড়াল করার জন্য তারা ভিকটিমের পরিহিত পায়জামা ভিকটিমের গলায় পেচিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে এবং মৃতদেহকে সুকৌশলে গভীর জঙ্গলে ফেলে যায়। গ্রেফতারকৃত আসামিরা এই ঘটনার সাথে তাদের সরাসরি সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় হত্যা মামলা কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন