• শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
মহেশপুরে অমর ২১শে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন জহির রায়হান থিয়েটারের ৩০ বছর পূর্তি আলোচনা সভা, ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠিত সাপাহারে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা-অনুষ্ঠিত কোস্ট গার্ড পশ্চিম জোন কর্তৃক চোরাকারবারি আটক সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে দিনব্যাপী কর্মসূচি পালন শেরপুরে চাঁদা না পেয়ে মারধর অপহরণ থানায় মামলা কাজিপুরে ৮ টি গাঁজার গাছসহ এক কারবারী গ্রেপ্তার উল্লাপাড়ার মওলানা আব্দুর রশিদ তর্কবাগিশ উচ্চ বিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত কাজিপুরে সোনামুখীতে এম মনসুর আলী স্মৃতি ভলিবলের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত রায়গঞ্জের পাঙ্গাসীতে অসহায় ও দুঃস্থ পরিবারের মধ্যে চাউল বিতরন

সংবাদ প্রকাশের পর তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফার্মেসীতে ফিরলো গায়েবী ঔষধ

রিপোর্টারঃ / ২১৬ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশিত হয়েছেঃ রবিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২২

সাব্বির মির্জা তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) সংবাদদাতা :
সিরাজগঞ্জের তাড়াশ হাসপাতাল থেকে আট লাখ টাকার ঔষধ গায়েব শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফার্মেসীতে হঠাৎ করেই মন্টিলুকাস্ট গ্রুপের ঔষধ ফিরে এসেছে।আজ শনিবার আন্তঃ এবং বর্হিঃবিভাগের চিকিৎসদের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ফার্মেসী থেকে ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এস কে এফ’র লুমনা (১০) ও অপসোনিন এর ট্রাইলক (১০) নামের দুটি ঔষধ রুগীদের মাঝে বিতরণ করা হয়।
এ দিকে সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. রামপদ রায় বলেন, প্রায় আট লাখ টাকা মূল্যমানের ঔষধ গায়েবের ঘটনা প্রকাশের পর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে ঔষধ গায়েবের বিষয়টি ধামা চাপা দিতেই কৌশলে গায়েবী ঔষধ ম্যানেজ করে সরবরাহ করছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. মনোয়ার হোসেন। তা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বর্হিঃবিভাগের এক চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র দেখেই বোঝা যায়। তাড়াশ পৌর সদরের শামীম হোসেন (৪০) নামের এক রোগী শনিবার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বর্হিঃবিভাগে চিকিৎসকের কাছে সেবা নিতে গিয়ে ছিলেন। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাঁর শ্বাসকষ্টজণিত রোগের জন্য ব্যবস্থাপত্রে অপসোনিন এর ট্রাইলক (১০) নামের ঔষধ নির্দেশ লিখে দেন। কিন্তু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফার্মেসীতে নিতে গেলে সেই রোগীকে এস কে এফ’র লুমনা (১০) সরবরাহ করা হয়। তার গাঁয়ে বিনা মূল্যে বিতরণের জন্য সীল নেই। পাশাপাশি ২০২১-২২ অর্থ বছরে গত জুনে আমেনা ট্রেডার্স ও এ,এ এন্টারপ্রাইজ কর্তৃক মন্টিলুকাস্ট গ্রপেরর ৫২ হাজার পাঁচ শ ৮৪ পিস ঔষধ উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরবরাহ করা হয়। যা গায়েব হওয়ার কারণে গত জুন থেকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফার্মেসীতে শ্বাসকষ্ট জনিত রোগের মন্টিলুকাস্ট গ্রুপের ঔষধ সরবরাহ করা হয়নি।

স্থানীয় সহ বেশ জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফার্মেসীতে হঠাৎ করেই শ্বাসকষ্টজণিত রোগের গায়েবী ঔষধ ফিরে আসে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ঔষধ গায়েবের সাথে জড়িতরা বিষয়টি সামাল দিতে কাগজ কলমে নভেম্বর মাস থেকে শ্বাসকষ্টজণিত রোগের ওই ঔষধ বিতরন দেখাচ্ছেন।

অবশ্য. উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. মানায়ার হোসেন কে হঠাৎ করে শ্বাসকষ্টজণিত রোগের ঔষধ ফিরে আসা প্রসঙ্গে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, এখন প্রয়োজন হচ্ছে তাই বিতরন করা হচ্ছে। আগে পাঁচ মাস কেন ওই ঔষধ বিতরন করেননি এ প্রশ্নে তিনি বলেন, তখন প্রয়োজন পরেনি তাই। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, তাড়াশ উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নানা বিষয়ে অনিয়ম রয়েছে। যার কারণে উপজেলাবাসী স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।


এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন