• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সামাজিক কাজে অবদান রাখায় সংবর্র্ধিত হলেন কাজিপুরের সোনামুখী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজিপুরে আনোয়ারা আজাদ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ কাজিপুরে আনোয়ারা আজাদ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ বগুড়ায় মাটিডালী যুব ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী বিতরণ শিবগঞ্জে প্রবীণ কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সারিয়াকান্দি কুতুবপুর ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের মাঝে চাল বিতরণ ধামরাইয়ের কালিয়াগারে জানালা ভাঙা নিয়ে তুমুল ঝগড়া ও সংঘর্ষ উপস্থাপনায় সেরা হওয়ার লড়াইয়ে বগুড়ার তামান্না খন্দকার ঈদ উপহার পেলেন কাজিপুরের ১৪শ দুস্থ পরিবার মোহাম্মদ নাসিমের জন্মদিনে কোরান শরিফ বিতরণ করলেন এমপি জয়

রাজশাহীতে নতুন জাতের সরিষার বাম্পার ফলন, কৃষকদের কাছে আলোড়ন সৃষ্টি

রিপোর্টারঃ / ২৫৮ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশিত হয়েছেঃ বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২২

রাজশাহী প্রতিনিধি :
রাজশাহীতে নতুন হাইব্রিড জাতের সরিষা আবাদ করে এলাকায় আলোড়ন পড়েছে। অল্প খরচে বেশী ফলন ও দাম বেশী পাওয়ায় রাজশাহীর পবার কৃষকদের কাছে এই আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। নতুন হাইব্রিড জাতের এই সরিষার নাম রানী-১০।

জানা গেছে, চলতি মৌসুমে রাজশাহীর পবা উপজেলার কৃষক রতন আলী পবা উপজেলার উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম টিপুর পরামর্শে হাইব্রিড জাতের রানী-১০ নামের সরিষার বীজ নিয়ে জমিতে আবাদ করে।এবার সে ৪ বিঘা জমিতে আবাদ করে বিঘা প্রতি ফলন পেয়েছে ১২-১৪ মন।তার এই ফলন দেখে এলাকায় ব্যাপক সাড়া পড়েছে। পবা উপজেলার ঠাকুরমারা এলাকার কৃষক রতন আলী জানান, আমি এবার ৪ বিঘা জমিতে রানী-১০ জাতের হাইব্রিড সরিষা ৪০০ টাকা কেজি দরে বীজ নিয়ে জমিতে রোপন করি। আবহাওয়া অনুকূলে ও কৃষি অফিসারের পরামর্শে নিয়মিত সার-বীজসহ পরিচর্যা করায় ভালো ফলন পেয়েছি। ৪ বিঘা জমিতে মাত্র ১৬ হাজার টাকা খরচ হয়েছে।বিঘাপ্রতি ১২-১৪ মন ফলন হয়েছে। সব মিলিয়ে আশা করা যায় সেচসহ অন্যান্য খরচ বাদে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা লাভ করব।
শুধু কৃষক রতন আলী নয়, পবা উপজেলার শুটাহাটি, ফদকিপাড়া, কুলপাড়াসহ আরো বেশ কয়েকটি গ্রামের কৃষক এই জাতের সরিষা চাষ করে ফলন ভালো পাওয়াতে এলাকায় সাড়া পড়েছে। আগামীতে এই জাতের সরিষার আবাদ বেড়ে যাবে। পবা উপজেলার উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম টিপু জানান, আমি রানী-১০ জাতের হাইব্রিড এই নতুন জাতের সরিষার সন্ধান পেয়ে পবা উপজেলার কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করি।এই সরিষা উচ্চতায় ৫-৬ ফুট উচ্চতা ও ফলন অন্যান্য সরিষার চাইতে অনেক বেশী হয়।

কৃষকরা যখন সরিষা আবাদ শুরু করে তখন অন্যান্য সরিষা আবাদের চাইতে ভিন্ন ভাবে পরিচর্যার পরামর্শ দিয়ে এই ফলন পাওয়া গেছে বলে জানান। তিনি আরো বলেন,সরিষার ফলন অনেক বেশী হওয়ায় ওই এলাকায় বেশ সাড়া পড়েছে।এই মৌসুমে প্রায় ৬০ বিঘা জমিতে আবাদ হয়েছে। আগামীতে এই আবাদ আরো বেড়ে যাবে বলে জানান।


এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন