• রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সামাজিক কাজে অবদান রাখায় সংবর্র্ধিত হলেন কাজিপুরের সোনামুখী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজিপুরে আনোয়ারা আজাদ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ কাজিপুরে আনোয়ারা আজাদ ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ বগুড়ায় মাটিডালী যুব ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী বিতরণ শিবগঞ্জে প্রবীণ কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ সারিয়াকান্দি কুতুবপুর ইউনিয়নে হতদরিদ্রদের মাঝে চাল বিতরণ ধামরাইয়ের কালিয়াগারে জানালা ভাঙা নিয়ে তুমুল ঝগড়া ও সংঘর্ষ উপস্থাপনায় সেরা হওয়ার লড়াইয়ে বগুড়ার তামান্না খন্দকার ঈদ উপহার পেলেন কাজিপুরের ১৪শ দুস্থ পরিবার মোহাম্মদ নাসিমের জন্মদিনে কোরান শরিফ বিতরণ করলেন এমপি জয়

সরিষাবাড়ীতে আবেদন দিয়েও তথ্য পাচ্ছে না সাংবাদিক মাসুদ 

রিপোর্টারঃ / ৩৭০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশিত হয়েছেঃ শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২২

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) সংবাদদাতা :
জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে টিআর, কাবিটা, কাবিখা প্রকল্পের তালিকা ও তথ্য চেয়ে তথ্য অধিকার আইনে আবেদন দিয়েও তথ্য পাচ্ছে না দৈনিক জনবাণী পত্রিকার স্টাফ রিপোর্টার ও দৈনিক আলোচিত জামালপুর পত্রিকার নিজস্ব প্রতিবেদক মাসুদুর রহমান। বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা যায়, ২০১৮-১৯,১৯-২০,২০-২১,২১-২২ অর্থ বছরের ১ম ও ২য় পর্যায়ে এবং ২০২২-২৩ অর্থ বছরের ১ম পর্যায়ে ইউপি ও স্থানীয় এম্পির সাধারণ ও বিশেষ টিআর, কাবিটা, কাবিখা, জিআর বরাদ্ধের তালিকা ও প্রকল্প কমিটির তথ্য চেয়ে তথ্য অধিকার আইনে ৯ নভেম্বর সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপমা ফারিসা বরাবর আবেদন করেন সাংবাদিক মাসুদুর রহমান। উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপমা ফারিসা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার নিকট আবেদনটির ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু ২২ দিন পেরিয়ে গেলেও তথ্য না দিয়ে আজ না কাল বলে দিন পার করছেন সরিষাবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবীর। আরো তথ্য রয়েছে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা-নির্বাচনী এলাকা-প্রথম পর্যায়) সোলার হোম সিস্টেম খাতে ২৩ হাজার ৬৬০ টাকা মূল্যের ৬০ ডব্লিউপি অনুকূলে ৫৬ লাখ ৬০ হাজার ৪০০ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। উপজেলার পোগলদিঘায় ১৮৪টি, কামরাবাদে ১৬টি, আওনায় ১৩টি ও মহাদান ইউনিয়নের নামে ছয়টি সোলার বরাদ্দ দেওয়া হলেও কয়েক বছর পার হলেও এখনো সুবিধাভোগীরা সোলার পাননি। এনিয়েও তদন্তের দাবী জানিয়েছে তালিকার নাম থাকা অনেকেই।

সাংবাদিক মাসুদুর রহমান জানান, তথ্য অধিকার আইন করা হলেও সরিষাবাড়ী উপজেলার কয়েকটি দপ্তরে তথ্য অধিকার আইনে আবেদন দেওয়া হলেও তথ্য মিলছে না। বিষয়টি নিয়ে জামালপুর জেলা প্রশাসক ও জেলা তথ্য কর্মকর্তা এবং প্রধান তথ্য কমিশনারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এ ছাড়াও ২০১৬-১৭, ১৭-১৮ অর্থ বছরের কোটি টাকার কাবিটা-টিআর প্রকল্পের রাস্তা ও সোলার প্যানেল স্থাপনে ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি ও নাম সর্বস্ব তালিকা তৈরির মাধ্যমে হরিলুট হয়েছে। যা বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় এবং অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে।

এ বিষয়ে সরিষাবাড়ী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবীরের বক্তব্য নেওয়ার জন্য বার বার মুঠোফোনে কল দেওয়া হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। কথা হলে শনিবার ৩ ডিসেম্বর দুপুরে সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপমা ফারিসা মুঠোফোনে জানান, আবেদন পেয়েছি। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে মার্ক করে দেওয়া হয়েছে। তিনি তথ্য গুলো আপনাকে দিবে।


এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন